ঢাকা,বাংলাদেশ

lutfor@firstaidforhealth.com

দ্রুত যোগাযোগ

কিডনির বৈকল্য বা কিডনি ফেইলিউর কারণ ও চিকিৎসা

Category Tags


আমবাত কেন হয় আমবাতের কারণ ও চিকিৎসা আর্টিকেরিয়ার চিকিৎসা কান পাকা ড্রপ কান পাকা বা মধ্যকর্ণের প্রদাহ কান পাকা রোগের এন্টিবায়োটিক কান পাকা রোগের ঔষধের নাম কান পাকা রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা কান পাকা রোগের ড্রপের নাম কানে পুঁজ হলে করনীয় কানের ড্রপ এর নাম কিডনির পাথর প্রতিরোধের উপায় ও চিকিৎসা কিডনির পাথরের লক্ষণ কোষ্ঠকাঠিন্য কি খেলে ভালো হয় কোষ্ঠকাঠিন্য কেন হয় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার ঘরোয়া উপায় ক্ষুধামন্দা কেন হয় খাদ্যে বিষক্রিয়া হলে করণীয় খাবারে অরুচি হলে করনীয় চর্ম রোগ চর্ম রোগের ঔষধের নাম চর্ম রোগের চিকিৎসা চর্ম রোগের প্রকারভেদ টনসিলাইটিস এর চিকিৎসা পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায় পুড়ে গেলে ঘরোয়া চিকিৎসা পোড়া ক্ষত শুকানোর ঔষধ পোড়ার জ্বালা কমানোর উপায় বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাত ব্যাথার চিকিৎসা বাত রোগের কারন বাতের ব্যথার লক্ষণ বিষক্রিয়া কত প্রকার বিষক্রিয়া কাকে বলে বিষক্রিয়ার প্রাথমিক চিকিৎসা বিষক্রিয়ার লক্ষণ বিষক্রিয়ার চিকিৎসা ও করণীয় মাসিকের ঔষধের নাম মাসিকের ব্যাথার কারন মাসিকের সময় পেটে ব্যাথার ঔষধ মিনি স্ট্রোক এর লক্ষণ হার্ট এটাক এর কারণ হার্ট এর ঔষধ হার্ট ব্লক হওয়ার লক্ষণ

কিডনির বৈকল্য বা কিডনি ফেইলিউর কারণ ও চিকিৎসা

কিডনি ফেইলিউর , কিডনির কাজ হচ্ছে দেহে উৎপন্ন বিপাক/বর্জ্য বা দূষিত পদার্থকে নিষ্কাশন করা,যার অন্নতম হল ইউরিয়া। এছাড়া শরীরে পানি ও ক্ষারের ভারসম্ম বজায় রাখা এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখাও কিডনির কাজ

কিডনি ফেইলিউর কি – কিডনির কার্যকারিতা নষ্ট হওয়াকে কিডনির বৈকল্য বা কিডনি ফেইলিউর বলা হয়।

এই রোগটি তিনটি পর্যায়ে রয়েছে :

  1. আকস্মিক কিডনি বৈকল্য (Acut kidney failure)
  2. ধীরগতি কিডনি বৈকল্য (Chrunic kidney failure)
  3. চুরান্ত কিডনি বৈকল্য (end -stage renal failure)

রোগের প্রকারভেদ (Classification )

রেনাল ফেইলিউর দুই প্রকের ,যথা :

কিডনি ফেইলিউর কারণ (causes )

কিডনি যখন স্বাভাবিক কাজ করতে পারে না তখন শরীরের বর্জ  এবং অতিরিক্ত পানি জমতে থাকে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত কারণের জন্য কিডনি বৈকল্য হয়ে থাকে

  • উচ্চ রক্তচাপ ও রক্তনালীর সমস্যার কারন
  • ডায়াবেটিস ও কিছু ঔষধ
  • কিডনিতে আঘাত এবং রাসায়নিক পদার্থ।
  • সংক্ৰমন ও জর্ম্মগত ত্রুটি

 রোগের লক্ষণ ও উপসর্গ (symptoms and signs)

কিডনি ড্যামেজের লক্ষণ – কিডনি রোগীর সাধারনত বমির ভাব এবং বমি হয়। তাছাড়া অন্যান্ন লক্ষণ সমূহ রোগের পর্যায় ভেদে ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে।

  •   আকস্মিক রেনাল ফেইলিউর: পস্রাবের পরিমান কমেযাওয়া ,ঝিমুনি,মাথা ব্যাথা,পিঠে ব্যাথা হতে পারে।
  •   ধীরগতি রেনাল ফেইলিউর:দুর্বলতা অনুভব,ক্ষুধামন্দা,ঘন ঘন পস্রাব হওয়া ,বিশেষ করে রাতের বেলায় ,ফ্যাকাসে ,চুলকানি,চামড়ায় সহজেই ক্ষত হওয়া ,দ্রুত শ্বাস প্রশ্বাস,অবিরাম হিক্কা,মাংসপেশির সংকোচন ,হাত-পায়ে পিন ফোটানো অনুভূতি,এমনকি হাত-পায়ে খিঁচুনি হতে পারে।
  •    চুরান্ত রেনাল ফেইলিউর:পস্রাবের পরিমান অত্যন্ত কমেযাওয়া ,মুখমন্ডল,পা এবং পেট ফোলা,প্রচন্ড দুর্বলতা ,মাথা ব্যাথা ,চামড়ায় অতিরিক্ত চুলকানি। এ পর্যায়ে রোগীকে ডায়ালাইসিস বা কিডনি প্রতিস্থাপন ছাড়া বাঁচানো সম্ভব হয়না।

চিকিৎসা (treatment)

সাধারণত একিউট রেনাল ফেইলরে কিডনির কার্য কারিতা আবার ফিরে আসে কিন্তু ক্রনিক রেনাল ফেইলরে তা হয়না এবং আস্তে আস্তে লাস্ট স্টেজ এ পরিণত হবার সম্ভাবনা থাকে।

তাই এ ধরনের রোগ দেখা দিলে অবশ্বই ডাক্তার দেখতে হবে।

শিরায় এন্টিবায়োটিক বা জীবাণু নাশক ব্যাবহার করতে হবে।

অন্নান্য ঔষধ প্রয়োজন অনুসারে ব্যাবহার করতে হবে।

যখন রেনাল ফেইলর স্থিতিতে আসে তখন কারন অনুযায়ী চিকিৎসা দিতে হবে।

যদি উপরুক্ত চিৎসায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসে তবে ডায়ালাইসিস এর ব্যাবস্থা করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *