ঢাকা,বাংলাদেশ

lutfor@firstaidforhealth.com

দ্রুত যোগাযোগ

ফেমোটিডিন এর ব্যবহার, কার্যকারিতা ও সেবনবিধি

Category Tags


আমবাত কেন হয় আমবাতের কারণ ও চিকিৎসা আর্টিকেরিয়ার চিকিৎসা কান পাকা ড্রপ কান পাকা বা মধ্যকর্ণের প্রদাহ কান পাকা রোগের এন্টিবায়োটিক কান পাকা রোগের ঔষধের নাম কান পাকা রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা কান পাকা রোগের ড্রপের নাম কানে পুঁজ হলে করনীয় কানের ড্রপ এর নাম কিডনির পাথর প্রতিরোধের উপায় ও চিকিৎসা কিডনির পাথরের লক্ষণ কোষ্ঠকাঠিন্য কি খেলে ভালো হয় কোষ্ঠকাঠিন্য কেন হয় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার ঘরোয়া উপায় ক্ষুধামন্দা কেন হয় খাদ্যে বিষক্রিয়া হলে করণীয় খাবারে অরুচি হলে করনীয় চর্ম রোগ চর্ম রোগের ঔষধের নাম চর্ম রোগের চিকিৎসা চর্ম রোগের প্রকারভেদ টনসিলাইটিস এর চিকিৎসা পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায় পুড়ে গেলে ঘরোয়া চিকিৎসা পোড়া ক্ষত শুকানোর ঔষধ পোড়ার জ্বালা কমানোর উপায় বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাত ব্যাথার চিকিৎসা বাত রোগের কারন বাতের ব্যথার লক্ষণ বিষক্রিয়া কত প্রকার বিষক্রিয়া কাকে বলে বিষক্রিয়ার প্রাথমিক চিকিৎসা বিষক্রিয়ার লক্ষণ বিষক্রিয়ার চিকিৎসা ও করণীয় মাসিকের ঔষধের নাম মাসিকের ব্যাথার কারন মাসিকের সময় পেটে ব্যাথার ঔষধ মিনি স্ট্রোক এর লক্ষণ হার্ট এটাক এর কারণ হার্ট এর ঔষধ হার্ট ব্লক হওয়ার লক্ষণ

ফেমোটিডিন একটি শক্তিশালী হিস্টামিন H২ এন্টাগোনিষ্ট যা আলসারেসন এবং অন্যান্ন অবস্থায় যেখানে গ্যাস্ট্রিক এসিড নিঃসরণ কমানো উপকারী,সেসব জায়গাতে ব্যবহূত হয়। 

 ফেমোটিডিন হচ্ছে গ্যাস্ট্রিক এসিড নিঃসরনে একটি তীব্র প্রতিবন্ধক,যা গ্যাস্ট্রিক প্যারাইটাল কোষের হিস্টামিন H2 রিসেপ্টরকে বাধা দিয়ে কাজ করে। ফেমোটিডিন এর যকৃত ও যকৃতের সাইটোক্রোম P৪৫০ এনজাইমের উপর কোন প্রভাব নেই। 

নির্দেশনা 

ফেমোটিডিন  নিম্ন ক্ষেত্রে ব্যাবহার করা হয়ে থাকে –

  • সক্রিয় ডিওডেনাল আলসার ও পুনরায় ডিওডেনাল আলসারের প্রতিষেধক হিসাবে। 
  • সাধারণ গ্যাস্ট্রিক আলসার ও জুলিনজার ইলিসন সিনড্রোম। 
  • গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজ এবং বুকজ্বালা ও এসিড পেপসিনের পেয়সামনে। 

মাত্রা ও ব্যাবহার বিধি 

সাধারণ গ্যাস্ট্রিক ও ডিওডেনাল আলসারে: ৪০ মি: গ্রা : রাতে ৪-৮ সপ্তাহ,এর পর ২০ মি: গ্রা : করে রাতে মেইন্টেইনেস ডোজ হিসাবে। 

 রিফ্লাক্স ইসো ফাযাইটিস : ২০-৪০ মি: গ্রা : দিনে দুই বার ৬-১২ সপ্তাহ, এর পর ২০ মি: গ্রা : করে দিনে ২ বার। 

জুলিনজার ইলিসন সিনড্রোম: ২০ মি: গ্রা : ৬ ঘন্টা পর পর। ৮০০ মি: গ্রা : দৈনিক বিভক্ত মাত্রায় দেয়া যেতে পারে। শিশুদের জন্য প্রযোজ্য নয়। 

প্রতিনির্দেশনা 

ফেমোটিডিন বিরূপ প্রতিক্রিয়ার মধ্যে মাথা ব্যাথা, মাথা ঘোরা,ফুসকুড়ি,ক্লান্তি লাগা,ডায়রিয়া এবং খাদ্যনালির অন্যান্ন অসুবিধা দেখা দিতে পারে। 

বৃক্কের অকার্যকারিতা ক্ষেত্রে এটি সাবধানে ব্যাবহার করতে হবে। 

গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে 

ফেমোটিডিন গর্ভাবস্থায় একান্ত প্রয়োজন না হলে ব্যাবহার করা উচিত নয়। স্তন্যদানকালীন অবস্থায় এটি না গ্রহণ করাই ভালো। 

 এই ঔষধ এর প্রতি অতি সংবেদন শীলতার ক্ষেত্রে ও গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সারের ক্ষেত্রে ব্যাবহার না করা উচিত। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *