ঢাকা,বাংলাদেশ

lutfor@firstaidforhealth.com

দ্রুত যোগাযোগ

বাতজ্বর বা (Rheumatic fever) এর কারণ, লক্ষণ, প্রতিকার ও চিকিৎসা

Category Tags


আমবাত কেন হয় আমবাতের কারণ ও চিকিৎসা আর্টিকেরিয়ার চিকিৎসা কান পাকা ড্রপ কান পাকা বা মধ্যকর্ণের প্রদাহ কান পাকা রোগের এন্টিবায়োটিক কান পাকা রোগের ঔষধের নাম কান পাকা রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা কান পাকা রোগের ড্রপের নাম কানে পুঁজ হলে করনীয় কানের ড্রপ এর নাম কিডনির পাথর প্রতিরোধের উপায় ও চিকিৎসা কিডনির পাথরের লক্ষণ কোষ্ঠকাঠিন্য কি খেলে ভালো হয় কোষ্ঠকাঠিন্য কেন হয় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার ঘরোয়া উপায় ক্ষুধামন্দা কেন হয় খাদ্যে বিষক্রিয়া হলে করণীয় খাবারে অরুচি হলে করনীয় চর্ম রোগ চর্ম রোগের ঔষধের নাম চর্ম রোগের চিকিৎসা চর্ম রোগের প্রকারভেদ টনসিলাইটিস এর চিকিৎসা পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায় পুড়ে গেলে ঘরোয়া চিকিৎসা পোড়া ক্ষত শুকানোর ঔষধ পোড়ার জ্বালা কমানোর উপায় বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাত ব্যাথার চিকিৎসা বাত রোগের কারন বাতের ব্যথার লক্ষণ বিষক্রিয়া কত প্রকার বিষক্রিয়া কাকে বলে বিষক্রিয়ার প্রাথমিক চিকিৎসা বিষক্রিয়ার লক্ষণ বিষক্রিয়ার চিকিৎসা ও করণীয় মাসিকের ঔষধের নাম মাসিকের ব্যাথার কারন মাসিকের সময় পেটে ব্যাথার ঔষধ মিনি স্ট্রোক এর লক্ষণ হার্ট এটাক এর কারণ হার্ট এর ঔষধ হার্ট ব্লক হওয়ার লক্ষণ

বাতজ্বর থেকে মুক্তির উপায়

বাতজ্বর বা (Rheumatic fever)একটি প্রদাহজনিত রোগ যা জয়েণ্ট,চর্ম ,মস্তিস্কে আক্রান্ত করতে পারে। সাধারণত গলায় সংক্ৰমের ২থেকে ৪ সপ্তাহ পরে এই রোগ শুরু হয়। বিটা-হিমোলাইটিক স্টেপটোকোক্কাস নামক এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমনে এই রোগ হয়। বাতজ্বর রোগীদের বয়স সাধারণত ৫ থেকে ১৫ বছর পর্যন্ত হয়ে থাকে। আবার ২৫ থেকে ৩৫ বছর বয়সীদের মধ্যেও এ রোগ হতে পারে। বাতরোগের অনেক উপসর্গ ও বাতজ্বরের অনেক উপসর্গের মধ্যে মিল থাকায় এই রোগের নাম রাখা হয়েছে বাতজ্বর। এ রোগের সাধারণ লক্ষণ সমূহ হচ্ছে জ্বর,জয়েণ্ট ব্যাথা,ইত্যাদি। এ রোগে প্রায় অর্ধেক রোগীই হার্ট আক্রান্ত হয়। এ রোগে ব্যাক্তির নিজের শরীরের টিস্যুর বিরোদ্বে এন্টিবডি তৈরি হয়। আবার যাদের শরীরে এই রোগের জিন রয়েছে তারা অন্যদের তুলনায় খুব সহজেই এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। এছাড়াও পুষ্টিহীনতা,দারিদ্র ইত্যাদি কারণেও এ রোগ হয়।

কারণ (Causes )

বাতজ্বর সাধারণত বিটা-হিমোলাইটিক স্টেপটোকোক্কাস নামক এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমনে এই রোগ হয়। দারিদ্র, পরিষ্কার-পরিছন্নতার অভাব,ঠান্ডা ও সেঁতসেঁতে পরিবেশ এবং অজ্ঞতাই এ রোগের প্রদান কারণ। এছাড়াও যেসব শিশু দীর্যদিন ধরে খোসপঁচড়া ও টনসিলের রোগে ভুগছে তাদের বাতজ্বর হবার সম্ভাবনা বেশি।

রোগের লক্ষণ ও উপসর্গঃ (Signs and symptoms)

বাতজ্বরের মূক্ষ ও গৌণ কিছু উপসর্গ আছে,যার যার সমন্নয়ে রোগ নির্ণয় করতে হয়। যদি দুটি মুখ্য উপসর্গ মিলে অথবা একটি মুখ্য উপসর্গের সাথে দুটি মুখ্য উপসর্গ মিলে যায় এবং সঙ্গে স্টেপটোকোক্কাস ব্যাকটেরিয়ার সংক্ৰমন প্রমাণিত হয়, তবেই কেবল বাতজ্বর হয়েছে বলে নিশ্চিত হতে হবে।

মুখ্য উপসর্গ :

  • চামড়ার নিচে ক্ষুদ্র ব্যাথাহীন পিন্ড অথবা ত্বকে লালচে দাগ।
  • অস্থিসন্দির প্রদাহ জনিত ব্যাথা ও ফুলে যাওয়া।
  • একটি সন্দি ভালো হয়ে গেলে আবার অন্নটি আক্রান্ত হয়। স্নায়ু জটিলতায় পেশির অস্বাভাবিক চলন,হৃদপিণ্ডের প্রদাহ বা কার্ডাইটিস ইত্যাদি।

গৌণ উপসর্গ:

  • জ্বর।
  • অস্থিসন্দ্বীতে ব্যাথা।
  • রক্তে ই এস আর বা সি আর পি বৃদ্ধি।
  • অল্পতে ক্লান্ত বা দুর্বল বোধ করা।
  • শ্বাসকষ্ট।
  • ই সি জিতে বিশেষ পরিবর্তন ইত্যাদি।

ল্যাবরেটরি পরীক্ষা (investigation)

  1. শারীরিক পরীক্ষা।
  2. রক্তের পরীক্ষা।
  3. ই সি জি.
  4. ইকোকার্ডিওগ্রাফি।

চিকিৎসা (treatment)

ব্যাথা এবং রোগের অন্যান্ন উপসর্গ ভালো না হওয়া পর্যন্ত রোগীকে প্রয়োজনে কয়েক সপ্তাহ বা কয়েক মাস পর্যন্ত সম্পর্ন বিশ্রামে থাকতে হবে এবং আক্রান্ত জয়েন্ট নড়াচড়া করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
ব্যাথা নাশক ঔষধ হিসাবে এসপিরিন খাওয়া যেতে পারে। প্রদাহ কমানোর জন্য এসপিরিন এর পাশাপাশি কর্টিকোস্টেরয়েড সেবন করা যেতে পারে।
এর পাশাপাশি এন্টিবাওটিক -বেঞ্জামিন পেনিসিলিন,ফিনক্সিমিথাইল পেনিসিলিন প্রভিতি ব্যাবহার করা যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *