ঢাকা,বাংলাদেশ

lutfor@firstaidforhealth.com

দ্রুত যোগাযোগ

বেটামিথাসন এবং নিওমাইসিন সালফেট এর ব্যবহার, কার্যকারিতা

Category Tags


আমবাত কেন হয় আমবাতের কারণ ও চিকিৎসা আর্টিকেরিয়ার চিকিৎসা কান পাকা ড্রপ কান পাকা বা মধ্যকর্ণের প্রদাহ কান পাকা রোগের এন্টিবায়োটিক কান পাকা রোগের ঔষধের নাম কান পাকা রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা কান পাকা রোগের ড্রপের নাম কানে পুঁজ হলে করনীয় কানের ড্রপ এর নাম কিডনির পাথর প্রতিরোধের উপায় ও চিকিৎসা কিডনির পাথরের লক্ষণ কোষ্ঠকাঠিন্য কি খেলে ভালো হয় কোষ্ঠকাঠিন্য কেন হয় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার ঘরোয়া উপায় ক্ষুধামন্দা কেন হয় খাদ্যে বিষক্রিয়া হলে করণীয় খাবারে অরুচি হলে করনীয় চর্ম রোগ চর্ম রোগের ঔষধের নাম চর্ম রোগের চিকিৎসা চর্ম রোগের প্রকারভেদ টনসিলাইটিস এর চিকিৎসা পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায় পুড়ে গেলে ঘরোয়া চিকিৎসা পোড়া ক্ষত শুকানোর ঔষধ পোড়ার জ্বালা কমানোর উপায় বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাত ব্যাথার চিকিৎসা বাত রোগের কারন বাতের ব্যথার লক্ষণ বিষক্রিয়া কত প্রকার বিষক্রিয়া কাকে বলে বিষক্রিয়ার প্রাথমিক চিকিৎসা বিষক্রিয়ার লক্ষণ বিষক্রিয়ার চিকিৎসা ও করণীয় মাসিকের ঔষধের নাম মাসিকের ব্যাথার কারন মাসিকের সময় পেটে ব্যাথার ঔষধ মিনি স্ট্রোক এর লক্ষণ হার্ট এটাক এর কারণ হার্ট এর ঔষধ হার্ট ব্লক হওয়ার লক্ষণ

বেটামিথাসন এবং নিওমাইসিন সালফেট এর ব্যবহার, কার্যকারিতা

বেটামিথাসন এবং নিওমাইসিন সালফেট হলো দুটি আমিনো এসিড যা চর্ম রোগ সাপেক্ষে গুরুত্বপূর্ণ।

এই দুটি উপাদান সামগ্রিকভাবে চিকিৎসার উপকারিতা সাধারিত হলেও,

এগুলি ব্যবহার করার আগে বা এগুলির সাথে সম্পর্কিত যেকোনও সমস্যা বা সংক্ষেপ সম্পর্কিত চিকিৎসকে পরামর্শ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

উপাদান

বেটামিথাসন ডাইপ্রোপিওনেট (১মি,গ্রা ,বেটামিথাসন বেস )এবং নিওমাইসিন সালফেট ৫ মি,গ্রা/গ্রাম ক্রীম। 

নির্দেশনা 

ব্যাক্টেরিয়া জনিত সেকেন্ডারী সংক্ৰমন,একজিমা,প্রুরিগো নন্ডুওলারিস,সোরিয়াসিস,সেবোরিক ডার্মাটাইটিস,স্পর্শজনিত চর্মরোগ। এটা  সাধারণ ইরাইথ্রোডার্মাতে স্টেরয়েড চিকিৎসাতেও সহচিকিৎসা হিসাবে বেবহার করা হয়। 

এটা পোকার কামড়ের জন্য সেকেন্ডারী সংক্ৰমন এবং মলদ্বার অথবা প্রজননতন্ত্রের মুখের সংক্রমণে বেবহার করা হয়। 

মাত্রা ও ব্যাবহার বিধি 

বেটামিথাসন এবং নিওমাইসিন সালফেট এর ব্যাবহার, প্রতিদিন ২ অথবা ৩ বার আক্রান্ত স্থানে মৃদুভাবে লাগাতে হবে। 

সতর্কতা ও যেসব ক্ষেত্রে বেবহার করা যাবে না 

  রোজেসিয়া,একনি ভালগারিস ও পেরিওয়াল ডারমাইটিস,হারপিস সিমপ্লেক্স,চিকেন পক্স ইত্যাদি ক্ষেত্রে বেবহার অনুপযোগী। এটার কোন উপাদানের প্রতি সংবেদনশীল রোগীদের ক্ষেত্রেও বেবহার করা যাবে না। 

কিছু বিশেষ ক্ষেত্রে যেমনঃ গর্বাবস্তায়,বয়স্কদের ক্ষেত্রে এবং যাদের বৃক্কের কার্যত্রুম ত্রুটিযুক্ত তাদের কোন বিরূপ প্রতিক্রিয়ার ঝুঁকির জন্য বেবহার না করা ভাল। 

ক্যান্ডিডিয়াসিস,টিনিয়া,সইমপেটিগো, সিউডোমোনাস অথবা প্রোটিয়াল শ্রেণীর জন্য প্রাইমারি এবং সেকেন্ডারি সংক্ৰমণ, পেরিয়েনাল এবং জননাঙ্গের প্রুরাইটিস,এক বৎসর বয়সের নীচে শিশুদের চর্মরোগ,ডার্মাটাইটিস এবং কাপড়ের ঘষায় সৃষ্ট ক্ষতে এটা বেবহার করা যাবে না। 

পার্স প্রতিক্রিয়া 

দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা চামড়ায় কোষের গঠন গত পরিবর্তন করতে পারে। যেমন চামড়ার উপরিভাগের রক্তনালীর প্রসারণ হতে পারে। 

দীর্ঘমেয়াদী ও প্রচুর পরিমানে ব্যাপক এলাকায় ব্যবহারের ফলে হাইপারকর্টিসিজম এর লক্ষণ দেখাযেতে পারে এবং হাইপোথ্যালামাস – পিটুইটারি-এড্রেনাল সাপ্রেশন ঘটতে পারে। 

গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে 

গর্ভবতী প্রাণীদের বাহ্যিকভাবে কর্টিকোস্টেরয়েড বেবহার ব্রুনের বৃদ্ধির অসামঞ্জসতা যেমন ব্রুনের ত্বক এবং মূত্র নালীর বৃদ্ধি ব্যাহত করে। 

মানুষের ব্রুনের খুবই অল্প পার্শ প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। 

3 responses to “বেটামিথাসন এবং নিওমাইসিন সালফেট এর ব্যবহার, কার্যকারিতা”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *