ঢাকা,বাংলাদেশ

lutfor@firstaidforhealth.com

দ্রুত যোগাযোগ

মূত্রাশয়ের প্রদাহ cystitis – লক্ষণ, কারণ, প্রকার এবং প্রতিরোধ

Category Tags


আমবাত কেন হয় আমবাতের কারণ ও চিকিৎসা আর্টিকেরিয়ার চিকিৎসা কান পাকা ড্রপ কান পাকা বা মধ্যকর্ণের প্রদাহ কান পাকা রোগের এন্টিবায়োটিক কান পাকা রোগের ঔষধের নাম কান পাকা রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা কান পাকা রোগের ড্রপের নাম কানে পুঁজ হলে করনীয় কানের ড্রপ এর নাম কিডনির পাথর প্রতিরোধের উপায় ও চিকিৎসা কিডনির পাথরের লক্ষণ কোষ্ঠকাঠিন্য কি খেলে ভালো হয় কোষ্ঠকাঠিন্য কেন হয় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার ঘরোয়া উপায় ক্ষুধামন্দা কেন হয় খাদ্যে বিষক্রিয়া হলে করণীয় খাবারে অরুচি হলে করনীয় চর্ম রোগ চর্ম রোগের ঔষধের নাম চর্ম রোগের চিকিৎসা চর্ম রোগের প্রকারভেদ টনসিলাইটিস এর চিকিৎসা পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায় পুড়ে গেলে ঘরোয়া চিকিৎসা পোড়া ক্ষত শুকানোর ঔষধ পোড়ার জ্বালা কমানোর উপায় বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাত ব্যাথার চিকিৎসা বাত রোগের কারন বাতের ব্যথার লক্ষণ বিষক্রিয়া কত প্রকার বিষক্রিয়া কাকে বলে বিষক্রিয়ার প্রাথমিক চিকিৎসা বিষক্রিয়ার লক্ষণ বিষক্রিয়ার চিকিৎসা ও করণীয় মাসিকের ঔষধের নাম মাসিকের ব্যাথার কারন মাসিকের সময় পেটে ব্যাথার ঔষধ মিনি স্ট্রোক এর লক্ষণ হার্ট এটাক এর কারণ হার্ট এর ঔষধ হার্ট ব্লক হওয়ার লক্ষণ

মূত্রাশয়ের প্রদাহ cystitis

মূত্রাশয়ের প্রদাহ বা Cystitis কি?

মূত্রথলির প্রদাহকে চিকিৎসার পরিভাষায় সিস্টাইটিস বলা হয়। যদিও মহিলাদের এটা সচরাচর বেশি হয়। পুরুষরাও এতে আক্রান্ত হন এবং বয়সী পুরুষরাই আক্রান্ত হয়।

মূত্রনালী প্রদাহ এর  কারণ ,

স্বাভাবিক জীবাণুমুক্ত মূত্রপথ ব্যাকটেরিয়ায় সংক্ৰমিত হলে সিস্টাইটিস হয়। এক্ষেত্রে মূত্র পথে জ্বালা করে ও প্রদাহ হয়। এটা খুবই সাধারণ বিষয়। বয়স্ক লোকদের সিস্টাইটিসে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি বেশি থাকে। শতকরা ৮৫ভাগের বেশি ক্ষেত্রে সিস্টাইটিস এর করণ হলো ই-কলাই নামক ব্যাকটেরিয়া।

মূত্রাশয়ের প্রদাহের প্রকার ভেদ ,

ইন্টারস্টিশিয়াল সিস্টাইটিস : সাধারণত মূত্রথলিতে আঘাতের কারণে এটি হয় এবং এক্ষেত্রে সংক্রমণের উপস্থিতি খুব কম থাকে। এ ধরনের রোগীর রোগ নির্ণয়ে সচরাচর অনেকেই ভুল করে। এ রোগের চিকিৎসায় এন্টিবায়োটিক ব্যাবহার করা হয় না। রোগের কারণ অজানা। এতে ভিবিন্ন ধরনের চিকিৎসা দেয়া হয়।

ইয়োসিনোফিলিক সিস্টাইটিস : এটি সিস্টাইটিসের একটি বিরল ধরণ। বায়োপসির মাধমে রোগ নির্নয় করাহয়। এসব ক্ষেত্রে মূত্র থলির দেয়াল অসঙ্খ ইয়োসিনোফিলে পূর্ন থাকে। যদিও এ ধরনের রোগের সঠিক কারণ জানা যায়নি। তবে শিশুদের ক্ষেত্রে কিছু ওষুধ এ রোগ বাড়িয়ে দেয়।

রেডিয়েশন সিস্টাইটিস : যেসব রোগী ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য রেডিয়েশন নিচ্ছেন ,তাদের সচরাচর এ সমস্যা দেখা দেয়।

হেমোরেজিক সিস্টাইটিস : এ ধরনের মূত্রথলির প্রদাহে প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত পরে।

মূত্রাশয় প্রদাহ এর লক্ষণ সমূহ,

 

  • তলপেটে চাপ অনুভব করা।
  • প্রস্রাব করার সময় ব্যথা বা কষ্ট হওয়া।
  • ঘনঘন প্রস্রাব করা অথবা প্রস্রাবের তীব্র ইচ্ছা জাগা।
  • রাতের বেলা প্রস্রাবের ইচ্ছা জাগা।
  • প্রস্রাব ঘোলাটে হওয়া।
  • প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত যাওয়া এবং দুর্গন্ধ  হওয়া।
মূত্রাশয়ের প্রদাহ cystitis -
মূত্রাশয়ের প্রদাহ cystitis –

 

Cystitis এর ল্যাবরেটরি পরীক্ষা বা মূত্রনালী পরীক্ষা

প্রস্রাবের সঙ্গে শ্বেত রক্ত কণিকা অথবা লোহিত রক্ত কণিকা যাচ্ছে কিনা তা দেখার জন্য প্রস্রাব বিশ্লেষণ।
ব্যাক্টেরিয়ার ধরণ নিরূপণ ও চিকিৎসা ক্ষেত্রে সঠিক এন্টিবায়োটিকের জন্য প্রস্রাবের কালচার পরীক্ষা।

মূত্রনালীর সংক্রমণ চিকিত্সা

যেহেতু ইনফেকশন কিডনিতে ছড়ানোর ঝুঁকি থাকে এবং বয়স্ক লোকদের জটিলতা হবার উচ্চ ঝুঁকি থাকে, তাই সর্বদা দ্রুত চিকিৎসা করতে হবে। ব্যাকটেরিয়া জনিত সংক্ৰমন নিয়ন্ত্রণে এন্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হয়। এন্টিবায়োটিক এর সম্পূর্ণ কোর্স শেষ করা খুবই গুরুত্ব পূর্ন।

মূত্রনালীর সংক্রমণের ঔষধ সমূহ

  • নাইট্রোফুরানটয়েন।
  • ট্রাইমেথোপ্রিম-সালফামেথোক্সাজল।
  • এমোক্সিসিলিন।
  • সেফালোক্সিন।
  • সিফ্রোফ্লক্সাসিন অথবা লিভোফ্লক্সাসিন ও
  • ডক্সিসাইক্লিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *